পাকিস্তানে এই জয় কাজে দিবে: মুমিনুল

স্পোর্টস ডেস্ক: মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের একমাত্র টেস্টে খেলতে নামে স্বাগতিক বাংলাদেশ। তবে এই ম্যাচ থেকে স্বস্তি নিয়েই মাঠ ছাড়ে টাইগাররা। ম্যাচের চতুর্থ দিনের চা-বিরতির ঠিক আগে জিম্বাবুয়েকে ইনিংস ও ১০৬ রানে হারায় বাংলাদেশ। ফলে টানা ছয় ম্যাচ হারের পর জয় পায় বাংলাদেশ। তবে এই জয় আগামী এপ্রিলে পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে সহায়ক হবে বলে জানান বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে মুমিনুল বলেন, ‘অবশ্যই, একটা জয় থাকলে তো আমার কাছে মনে হয় পুরো দলই আত্মবিশ্বাস ফিরে পায়। আমার কাছে মনে হয় এই জয় পাকিস্তানে কাজে দিবে।’

গত নভেম্বরে ভারত সফর দিয়ে টেস্ট দলের অধিনায়ক হন মুমিনুল। ফলে ভারত সফর থেকেই দলের নেতৃত্ব পান মুমিনুল। কিন্তু সফরটি সুখকর হয়নি বাংলাদেশের। ভারতের কাছে দু’ম্যাচের সিরিজের দু’টিতেই ইনিংস ব্যবধানে হারে বাংলাদেশ। এরপর পাকিস্তানের মাটিতেও যাচ্ছে তাই ভাবে পরাজিত হয় বাংলাদেশ। মোমিনুলের নেতৃত্বে তিনটি টেস্টই ইনিংস ব্যবধানে হারে টাইগাররা।

অবশেষে ইনিংস ব্যবধানে হারের পর মুমিনুলের নেতৃত্বে জয়ের মুখ দেখলো বাংলাদেশ। টানা ছয় টেস্ট হারের পর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে এই জয় যেমনটা স্বস্তির। ঠিকই তেমনি অধিনায়ক হিসেবে টানা তিন টেস্টে ইনিংস ব্যবধানে হারের পর জয় মুমিনুলের জন্য স্বস্তির।

তবে এটিকে স্বস্তি বলতে নারাজ মুমিনুল, ‘আসলে স্বস্তি না। দল যেভাবে কাজ করবে, যেমনটা হওয়া উচিত সেভাবে, মানে খেলোয়াড়রা দল হিসেবে কিভাবে কাজ করবে, কিভাবে খেলবে সেই জিনিসটা আমি সবসময় আসলে দেখতে চাইছিলাম। এটা আমি ফিল করতে চাইছিলাম। আমার কাছে মনে হয় যে, প্রথম ইনিংস থেকে আপনারা হয়তো খেয়াল করেছেন। পেস বোলার থেকে শুরু করে স্পিনাররা এমনকি ব্যাটসম্যানরা পর্যন্ত সেভাবে দলের যা দরকার সেভাবে করেছে। এই কারণে আমার কাছে মনে হয় ফলাফলটি এসেছে।’

দলের জয়ের অবদান রাখতে পেরে খুশী মুমিনুল, ‘হ্যাঁ, একটু তো অবদান রাখতে পারলে ভালো লাগে। আমার কাছে মনে হয় অধিনায়ক হিসেবে এবং দলের একজন সদস্য হিসেবে সবসময় সবার কাছে এটা কাম্য যদি আপনি কিছু করতে পারেন। আমার মনে হয় আমি দলের জন্য কিছু অবদান রাখতে পেরেছি এবং সেটা করতে পারলে অনেক ভালো লাগে। আমার কাছে মনে হয় ছোট ছোট অবদান রাখাটাও অনেক বেশি কিছু।’

বাংলাদেশ বুলেটিন/এস কে