বিতর্কিত কাউকে মনোনয়ন দেওয়া হবে না: কাদের

অনলাইন ডেস্ক : ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিতর্কিত কাউকে মনোনয়ন দেওয়া হবে না। কেবল যেসব প্রার্থী বিজয়ী হতে পারবেন তাদেরকেই দল থেকে মনোনয়ন দেওয়া হবে। বৃহস্পতিবার (২৬ ডিসেম্বর) নারায়ণগঞ্জের কাঞ্চন ব্রিজের কাছে ঢাকা বাইপাস সড়ক এক্সপ্রেসওয়েতে উন্নীতকরণ প্রকল্পের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনকে অবাধ-সুষ্ঠু-নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে সব ধরনের সহযোগিতা সরকার থেকে করা হবে।’ অনুষ্ঠানে আরও বক্তৃতা করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য, বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতীক।

অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, সিটি নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থী ঠিক করতে আগামীকাল দলীয় মনোনয়ন বোর্ডের সভা বসবে। প্রায় ১৭৫ জন প্রার্থীকে সেখানে মনোনয়ন দেয়া হবে। এটি একটি চ্যালেঞ্জিং কাজ। তবে প্রার্থী মনোনয়নের ক্ষেত্রে কোন বিতর্কিত কাউকে দেওয়া হবে না। আর মেয়র মনোনয়নে যিনি জিতে আসতে পারবেন তাকেই কেবল প্রার্থী করা হবে।

সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ঢাকা বাইপাস সড়ক হবে দেশের দ্বিতীয় এক্সপ্রেসওয়ে। এ সড়ক দিয়ে উত্তরাঞ্চলের পণ্যবাহী যানবাহন দ্রুত চলাচল চলাচল করতে পারবে। ঢাকা শহরকে পাশ কাটিয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে গাড়ি উঠতে পারবে। চট্টগ্রাম বন্দরের সঙ্গে উত্তরাঞ্চলের সরাসরি সড়ক যোগাযোগ তৈরি হবে।

চার হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে তিন বছরের মধ্যেই আগামী ২০২২ সালে সড়ক নির্মাণ কাজ শেষ হবে বলে আশা প্রকাশ করেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। মন্ত্রী জানান, পাঁচটি সড়ক ওভারপাস এবং দুটি রেলওয়ে ওভারপাস থাকবে এই সড়কে। ৪৮ কিলোমিটারে ২৫টি আন্ডারপাস করা হবে।

এসময় মন্ত্রী আরও বলেন, ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক চার লেন প্রকল্পের দরপত্র প্রক্রিয়া দ্রুত করা হবে। এ প্রকল্পে এডিবি অর্থায়ন করছে। দরপত্র প্রক্রিয়া শেষে দ্রুত নির্মাণকাজ শুরু করা হবে। সেখানেও চারলেনের পাশাপাশি কম গতির গাড়ি চলাচলের জন্য দুইপাশে সার্ভিস লেন থাকবে।

অনুষ্ঠানে ওবায়দুল কাদেরকে দ্বিতীয়বার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ায় বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতীক ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

বিশেষ অথিতির বক্তব্যে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারনেই দেশ আজ অর্থনৈতিকভাবে উন্নতি লাভ করেছে। ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নত সমৃদ্ধ দেশে পরিনত হবে।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত কে এইচ জেমিং, রোডস এন্ড হাইওয়ের প্রধান প্রকৌশলী জাওয়াদ আলম, প্রকল্প পরিচালক সবুজ উদ্দিন খানসহ অনেকে।

বাংলাদেশ বুলেটিন/এমআর