🗓️ শুক্রবার ৯ ডিসেম্বর ২০২২ ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
   

ঘুরতে যাওয়ার টাকা জোগাড় করতে পরিকল্পিতভাবে নানাকে খুন
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২২, ৯:৫৩ এএম | অনলাইন সংস্করণ


ঘুরতে যেতে টাকার দরকার তাঁদের। নানার কাছে ছিল টাকা। এক মাস আগে শাহাদাত মুবিন ওরফে আলভী (২০) ও আনিকা তাবাসসুম (২৩) তাঁদের নানা সত্তরোর্ধ্ব মনসুর আহম্মেদকে অচেতন করে টাকাপয়সা নেওয়ার পরিকল্পনা করেন। পরিকল্পনা বাস্তবায়নে যুক্ত হন আনিকার বন্ধুসহ আরও তিনজন।

পুলিশ বলছে, পরিকল্পনা অনুযায়ী ১৭ নভেম্বর রাজধানীর চকবাজার খাঁজে দেওয়ান প্রথম লেনের ছয়তলা ভবনের দোতলায় নকল চাবি দিয়ে দরজা খুলে বাসায় ঢুকেন তিনজন। তাঁরা হাজি মনসুর আহম্মেদকে হত্যা করে টাকা লুট করেন। বাসার বাকি সদস্যরা তখন বাইরে ছিলেন। মনসুর চকবাজার মসজিদ কমটির সভাপতি ছিলেন।

এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে গতকাল মঙ্গলবার রাতে পুরান ঢাকার বকশীবাজার, চাঁদপুর আর মুন্সিগঞ্জ থেকে মনসুর আহম্মেদের দুই নাতি-নাতনিসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে চকবাজার থানার পুলিশ। তাঁরা হলেন মনসুর আহম্মেদের নাতনি আনিকা তাবাসসুম (২৩), নাতি শাহাদাত মুবিন (২০), তাবাসসুমের বন্ধু রাজু (২২), রাজুর ভাই রায়হান (২০) ও তাঁদের পরিচিত আবু সাঈদ (২০)।

বুধবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) যুগ্ম কমিশনার (অপরাধ) বিপ্লব বিজয় তালুকদার বলেন, ‘ঘটনাস্থল থেকে একটি সিরিঞ্জ জব্দ করা হয়। এই সিরিঞ্জের সূত্র ধরে হত্যা মামলার তদন্তে মোড় নেয়। শুরুতে ডাকাতিসহ খুনের মামলা হলেও পরে পরিবারের সদস্যদের পরিকল্পনায় খুনের প্রমাণ পাই আমরা। পরিকল্পনায় ছিলেন আনিকা ও শাহাদাত।’

পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, আনিকা রাজধানীর একটি বেসরকারি ডেন্টাল কলেজে পড়েন। তাঁর পরিকল্পনায় শাহাদাতসহ অন্যরা ডাকাতির উদ্দেশ্যে ওই বাসায় ঢোকেন। বাইরে ঘুরতে যাওয়ার টাকা জোগাতে তাঁরা ডাকাতির পরিকল্পনা করেন।

পুলিশ কর্মকর্তা বিপ্লব বিজয় বলেন, এক মাস আগে মনসুরকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়। বাসা ফাঁকা পাওয়ার সুযোগ খুঁজছিলেন শাহাদাত ও আনিকা। ১৭ নভেম্বর রাতে পরিবারের সদস্যরা একটি বিয়ের দাওয়াতে যান। আনিকাও সেখানে যান। কমিউনিটি সেন্টার থেকেই পরিকল্পনা বাস্তবায়নের কাজটি তদারকি করেন তিনি। বাড়ির আশপাশে অবস্থান নিয়ে আনিকার বন্ধু রাজু বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করেন। বাসায় ঢোকেন আনিকার ভাই শাহাদাত, রাজুর ভাই রায়হান ও সাঈদ। তাঁরা মনসুরকে অচেতন করতে ইনজেকশন দিতে গেলে তিনি বাধা দেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তিনজন মিলে তাঁকে মারধর করলে একপর্যায়ে তিনি মারা যান। এরপর তাঁরা বাসা থেকে ৯২ হাজার টাকা নিয়ে যান। ১৯ নভেম্বর মনসুরের ছেলে আসগর আহম্মেদ বাদী হয়ে চকবাজার থানায় ডাকাতিসহ হত্যা মামলা করেন। মামলার তদন্ত করতে গিয়ে বেরিয়ে আসে, মনসুর হত্যায় তাঁর পরিবারের সদস্যরা জড়িত।

মামলা তদন্তের সঙ্গে যুক্ত কর্মকর্তারা বলেন, রায়হান ও সাঈদ মিলে মনসুরকে মারধর করে ঘরে থাকা ৯২ হাজার টাকা নিয়ে যান। টাকা খুঁজে বের করে দেন শাহাদাত। লুটের ৬২ হাজার টাকা আনিকার বাসা থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। পারিবারিক মূল্যবোধ ও সামাজিক অবক্ষয়ের কারণে এ হত্যাকাণ্ড বলে কর্মকর্তারা মনে করছেন।

পুলিশ বলছে, আনিকা ও শাহাদাত হত্যায় জড়িত থাকার বিষয়টি পরিবারের সদস্যরা বুঝতে পারলেও তা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করা হয়। তবে ঘটনাস্থল পরিদর্শন, ডিজিটাল ফরেনসিক, সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ বিশ্লেষণ করে জড়িত ব্যক্তিদের শনাক্ত ও গ্রেপ্তার করে পুলিশ। কার কী দায় রয়েছে, তা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকারও করেন তাঁরা।

-বাবু/এ.এস

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সাউথ বেঙ্গল গ্রুপ কর্তৃক প্রকাশিত
প্রধান উপদেষ্টা সম্পাদক : প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো. আশরাফ আলী
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : রফিকুল ইসলাম রতন
আউয়াল সেন্টার (লেভেল ১২), ৩৪ কামাল আতাতুর্ক এভিনিউ, বনানী, ঢাকা-১২১৩।
ফোন : ০২-৪৮৮১১০৬১-৩, ই-মেইল : [email protected]
কপিরাইট © বাংলাদেশ বুলেটিন সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত