ঢাকা, সোমবার, ১৭ মে ২০২১ ই-পেপার

কোরআন ও হাদিসের আলোকে রোজা

ধর্ম ডেস্ক :

২০২১-০৪-১৬ ১০:২৫:৫৫ /

প্রতীকী ছবি

পবিত্র কোরআনে আল্লাহ সুবহানাহু তায়ালা মাহে রমজান ও রোজা সম্পর্কে একাধিক আয়াত নাজিল করেছেন। মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের একাধিক হাদিসেও রমজান এবং রোজা বিষয়ক দিক-নিদের্শনা রয়েছে। বিভিন্ন আলোচনায় কোরআন ও হাদিসের এসব উদ্ধৃতি ব্যবহৃত হয়। আমরা প্রাসঙ্গিক স্থানে বিভিন্ন আয়াত ও হাদিসের উল্লেখ ও ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ দিয়েছি। তবে, এখানে রমজান ও রোজা সংক্রান্ত মৌলিক ও গুরুত্বপূর্ণ আয়াত ও হাদিসগুলো উল্লেখ করা হলো, যাতে পাঠকগণ এ বিষয়ে পূর্ণ অবহিত হতে পারেন।

*  রমজান ও রোজা সম্পর্কিত কোরআনের আয়াত

১.   হে মুমিনগণ, তোমাদের জন্যে সিয়ামের (রোজা) বিধান দেওয়া হলো, যেমন বিধান তোমাদের পূর্ববর্তীগণকে দেওয়া হয়েছিল, যাতে তোমরা মুত্তাকী হতে পারো। (সুরা আল বাকারা: আয়াত ১৮৩)

২.   সিয়াম (রোজা) নির্দিষ্ট কয়েক দিনের। তোমাদের মধ্যে কেউ অসুস্থ হলে অথবা সফরে থাকলে অন্য সময় এই সংখ্যা পূর্ণ করবে। এটি যাদের সাতিশয় কষ্ট দেয় তাদের কর্তব্য এর পরিবর্তে ফিদিয়া- একজন অভাবগ্রস্তকে খাদ্যদান করা। যদি কেউ স্বতঃস্ফূর্তভাবে সৎকাজ করে তবে তা তার পক্ষে অধিক কল্যাণকর। আর সিয়াম (রোজা) পালন করাই তোমাদের জন্য অধিকতর কল্যাণ কর যদি তোমরা জানতে। (সুরা আল বাকারা: আয়াত ১৮৪)

৩.   রমজান মাস, এতে মানুষের দিশারী এবং সৎপথের স্পষ্ট নিদর্শন ও সত্যাসত্যের পার্থক্যকারীরূপে কোরআন অবতীর্ণ হয়েছে। সুতরাং তোমাদের মধ্যে যারা এ মাস পাবে তারা যেন এ মাসে সিয়াম (রোজা) পালন করে এবং কেউ অসুস্থ থাকলে কিংবা সফরে থাকলে অন্য সময় এ সংখ্যা পূরণ করবে। আল্লাহ তোমাদের জন্যে যা সহজ তা চান এবং যা তোমাদের জন্য কষ্টকর তা চান না, এজন্যে যে তোমরা সংখ্যা পূর্ণ করবে এবং তোমাদেরকে সৎপথে পরিচালিত করার কারণে তোমরা আল্লাহর মহিমা ঘোষণা করবে এবং যাতে তোমরা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে পারো। (সুরা আল বাকারা: আয়াত ১৮৫)

৪.   সিয়ামের (রোজার) রাতে তোমাদের জন্যে তোমাদের স্ত্রীদের বৈধ করা হয়েছে। তারা তোমাদের জন্যে এবং তোমরাও তাদের জন্যে পরিচ্ছদ। আল্লাহ জেনেছেন যে, তোমরা তোমাদের নিজেদের সাথে খিয়ানত করছিলে, অতঃপর তিনি তোমাদের তাওবা কবুল করেছেন এবং তোমাদেরকে মার্জনা করেছেন, সুতরাং এখন তোমরা তাদের সাথে সংগত হও এবং আল্লাহ তোমাদের জন্যে যা নির্ধারণ করে রেখেছেন (অর্থাৎ সন্তান) তা অন্বেষণ করো। আর তোমরা আহার করো ও পান করো যতক্ষণ না তোমাদের জন্যে (রাত্রির) কালো রেখা থেকে ফজরের সাদা রেখা স্পষ্ট হয়ে যায়। এরপর  রাত পর্যন্ত রোজা পূর্ণ করো। আর তোমরা মসজিদে ইতেকাফ অবস্থায় তাদের সাথে সংযত হয়ো না। এগুলো আল্লাহর (নির্ধারিত) সীমা, সুতরাং এর নিকটবর্তী হয়ো না। এভাবেই আল্লাহ মানুষের জন্যে তাঁর আয়াতসমূহ স্পষ্টভাবে বর্ণনা করেন, যাতে তারা তাকওয়া অবলম্বন করতে পারে। (সুরা আল বাকারা: ১৮৭) 

* রমজান ও রোজা সম্পর্কিত রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের হাদিস

১.   হযরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন, যে ব্যক্তি ঈমান ও ইহতিসাব-সহ রমজান মাসের রোজা রাখবে, তার পূর্ববর্তী ও পরবর্তী গোনাহ মাফ করে দেওয়া হবে। (বোখারি ও মুসলিম)

২.   হযরত সাহল বিন সাদ রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, তিনি বলেন,  রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন, জান্নাতের একটি দরজা আছে, একে ‘রাইয়্যান’ বলা হয়, এই দরজা দিয়ে কিয়ামতের দিন একমাত্র রোজাদার ব্যক্তিই জান্নাতে প্রবেশ করবে। তাদের ছাড়া অন্য কেউ এই পথে প্রবেশ করবে না। সেদিন এই বলে আহ্বান করা হবে, ‘রোজাদারগণ কোথায়?’ তারা যেন এই পথে প্রবেশ করে। এভাবে সকল রোজাদার ভেতরে প্রবেশ করার পর দরজাটি বন্ধ করে দেওয়া হবে। অতঃপর এ পথে আর কেউ প্রবেশ করবে না। (বোখারি ও মুসলিম)

৩.   হযরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন, রোজা ঢাল স্বরূপ, তোমাদের কেউ কোনদিন রোজা রাখলে তার মুখ থেকে যেন অশ্লীল কথা বের না হয়। কেউ যদি তাকে গালমন্দ করে অথবা ঝগড়ায় প্ররোচিত করতে চায়, সে যেন বলে, আমি রোজাদার। (বোখারি ও মুসলিম)

৪.   হযরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন, আদম সন্তানের প্রতিটি নেক আমলের সাওয়াব দশগুণ হতে সাতশত গুণ পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়। কিন্তু আল্লাহ তায়ালা বলেন, রোজা এই সাধারণ নিয়মের ব্যতিক্রম। কেননা ইহা একান্ত আমারই জন্যে। অতএব আমিই এর প্রতিদান দেবো। রোজা পালনে আমার বান্দা আমারই সন্তুষ্টির জন্যে স্বীয় ইচ্ছা, বাসনা ও পানাহার পরিত্যাগ করে থাকে। রোজাদারের জন্যে দুটি আনন্দ। একটি ইফতারের সময় এবং অন্যটি তার প্রতিপালক আল্লাহর সাথে সাক্ষাতের সময়। নিশ্চয় জেনে রেখো, রোজাদারের মুখের গন্ধ আল্লাহর নিকট সুগন্ধি হতেও অনেক উত্তম। (বোখারি ও মুসলিম)

৫.   হযরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন, তোমাদের নিকট রমজান মাস উপস্থিত। উহা এক অত্যন্ত বরকতময় মাস। আল্লাহ তায়ালা এ মাসে তোমাদের প্রতি রোজা ফরজ করেছেন। এ মাসে আকাশের দরজাসমূহ উন্মুক্ত হয়ে যায়, এ মাসে জাহান্নামের দরজাগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয় এবং এ মাসে বড় বড় শয়তানগুলো আটক করে রাখা হয়। আল্লাহর জন্যে এ মাসে একটি রাত আছে, যা হাজার মাসের চেয়েও অনেক উত্তম। যে লোক এ রাত্রির মহা কল্যাণ লাভ হতে বঞ্চিত থাকলো, সে সত্যিই বঞ্চিত ব্যক্তি। (বোখারি ও মুসলিম)

বাবু/আমেনা

এ জাতীয় আরো খবর

শাওয়ালের ৬ রোজার ফজিলত ও মর্যাদা

শাওয়ালের ৬ রোজার ফজিলত ও মর্যাদা

কিশোরগঞ্জে সাড়ে ৫ হাজার মসজিদে ঈদের জামাত

কিশোরগঞ্জে সাড়ে ৫ হাজার মসজিদে ঈদের জামাত

কেন এই ঈদ? কিভাবে এলো?

কেন এই ঈদ? কিভাবে এলো?

ঈদের রাতের আমল ও ফজিলত

ঈদের রাতের আমল ও ফজিলত

প্রিয় নবীজি (সা.) যেভাবে সদকাতুল ফিতর দিতেন

প্রিয় নবীজি (সা.) যেভাবে সদকাতুল ফিতর দিতেন

চাঁদ দেখা যায়নি, সৌদিতে ঈদ ১৩ মে

চাঁদ দেখা যায়নি, সৌদিতে ঈদ ১৩ মে