ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১ ই-পেপার

নীরবেই কেটে গেল দক্ষিণাঞ্চলের সর্ববৃহৎ গণহত্যা দিবস

আমির হামজা, আগৈলঝাড়া (বরিশাল) :

২০২১-০৫-১৬ ১৯:২৬:৪৭ /

১৫ মে দক্ষিণাঞ্চলের সর্ববৃহৎ গণহত্যা দিবস। ১৯৭১ সালের এদিনে আগৈলঝাড়ার রাজিহার ও রাংতা গ্রামের অংশের কেতনার বিলে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাতে জীবন দিতে হয়েছে নিরীহ দেড় সহস্রাধিক লোককে। শহীদরা গৌরনদী ও আগৈলঝাড়া উপজেলার ৮টি গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন। দীর্ঘদিন পর হলেও স্বজন হারানো পরিবারসহ মুক্তিযোদ্ধাদের দাবির মুখে স্বাধীনতার সুর্বনজয়ন্তীতে গণহত্যার স্থানে শহীদদের স্মরণে সরকারী উদ্যোগে স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করা হয়েছে। তবে আজও দেওয়া হয়নি শহীদ পরিবারের স্বীকৃতি। সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে কোন কর্মসূচি পালন না করায় শহীদ পরিবারসহ স্বাধীনতার স্ব-পক্ষের মানুষদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

সেদিনের ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী রাজিহার গ্রামের কাশী নাথ পাত্রের পুত্র অমূল্য জানান, ৭১’র সালের ১৪ মে বাঁকাই গ্রামে পাক হানাদারদের ৪ সদস্যকে কুপিয়ে হত্যা করে। এ খবর ছড়িয়ে পড়ে গৌরনদী কলেজের পাক শিবিরে। তারা স্থানীয় আলবদর ও রাজাকারদের সহযোগিতায় চাঁদশীর বাজার হয়ে বাকাল গ্রামের দিকে ছুটে জনতার ওপর এলএমজির ব্রাশ ফায়ার শুরু করে।

পাক সেনাদের ভয়ে সেদিন চাঁদশী, রাংতা, রাজিহার, চেঙ্গুটিয়া, টরকী, কান্দিরপাড়সহ ৮টি গ্রামের নিরীহ মানুষ প্রাণ বাঁচাতে আশ্রয় নেয় রাংতা গ্রামের কেতনার বিল ও পাট ক্ষেতে। সূত্রমতে, স্থানীয় রাজাকারদের সহযোগিতায় পাকিস্তানী সৈন্যরা কেতনার বিলে লুকিয়ে থাকা নিরীহ গ্রামবাসীদের ওপর প্রধান রাস্তা থেকে পাখির মতো গুলি করে অন্তত দেড় সহস্রাধিক নিরীহ গ্রামবাসীকে হত্যা করে। এরপর রাজিহার গ্রামের হিন্দু পাড়ায় আগুন ধরিয়ে পুড়িয়ে দেয় সকল বাড়ি ঘর। এরইমধ্যে চলে লুটপাট। তিনি আরও জানান, ওইসময় প্রাণ বাঁচাতে পালানো মানুষের ভিড়ে বিভৎস লাশ সৎকার বা কবর দেওয়ার লোক খুঁজে পাওয়া যায়নি। তারপরেও মৃত্যুপুরী থেকে পাত্র বাড়ির বেঁচে যাওয়া হরলাল ও তার নেতৃত্বে হরলালের পুত্র সুশীল পাত্র, কেষ্ট পাত্র, রাধা কান্ত পাত্রসহ কয়েকজনে পরদিন তাদের হারানো স্বজনসহ প্রায় দেড় শতাধিক লোকের লাশ ছয়টি গর্তে মাটি চাঁপা দিয়ে রাখেন। বাকি লাশগুলো কেতনার বিলে শেয়াল, কুকুরের খাবার হয়ে যায়।

বাবু/ইমু

 

 

এ জাতীয় আরো খবর

ঢাকা-কুয়াকাটার দূরত্ব কমাবে লেবুখালী সেতু

ঢাকা-কুয়াকাটার দূরত্ব কমাবে লেবুখালী সেতু

আলো ছড়াচ্ছে মজিবুর রহমান স্মৃতি গ্রন্থাগার

আলো ছড়াচ্ছে মজিবুর রহমান স্মৃতি গ্রন্থাগার

মধুর বাঁশির সুর যেন হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালাকেও হার মানায়

মধুর বাঁশির সুর যেন হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালাকেও হার মানায়

যমুনা চরে বাদামের বাম্পার ফলন

যমুনা চরে বাদামের বাম্পার ফলন

আত্মরক্ষার তাগিদেই নারীদের ক্যারাটে শেখা উচিত : মৌসুমী মজুমদার

আত্মরক্ষার তাগিদেই নারীদের ক্যারাটে শেখা উচিত : মৌসুমী মজুমদার

হারিয়ে যেতে বসেছে রসালো ফল কালো জাম

হারিয়ে যেতে বসেছে রসালো ফল কালো জাম