ঢাকা, বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ ই-পেপার

আফগান সরকার-তালেবানের ‘ঐতিহাসিক’ শান্তি আলোচনা শুরু

বুলেটিন নিউজ ডেস্ক :

২০২০-০৯-১২ ১৮:০৯:৪৮ /

অবশেষে আফগান সরকার এবং তালেবানের মধ্যে ‘ঐতিহাসিক’ শান্তি আলোচনা শুরু হয়েছে। যদিও আরও কয়েক মাস আগেই শান্তি আলোচনা শুরুর কথা ছিল। তবে বেশ কিছু কারণে তা পিছিয়ে গেছে।

উপসাগরীয় দেশ কাতারে আফগান সরকার ও তালেবান প্রতিনিধিদের মধ্যে প্রথমবারের মতো শান্তি আলোচনাকে কেন্দ্র করে আশার আলো দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও এ আলোচনাকে ‘ঐতিহাসিক’ উল্লেখ করে এই আলোচনার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ার জন্য দোহা উড়ে গেছেন।

গত ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তালেবানের নিরাপত্তা চুক্তির পরই এ আলোচনা শুরুর কথা ছিলো। কিন্তু একজন বিতর্কিত বন্দী বিনিময়ের বিষয়ে মতবিরোধের জের ধরে তা পিছিয়ে যায়। আফগান সরকারের একটি প্রতিনিধি দল এই শান্তি আলোচনায় যোগ দিতে গত ১১ সেপ্টেম্বর কাবুল ছেড়ে দোহার উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন।

উনিশ বছর আগে এ দিনটিতেই যুক্তরাষ্ট্রে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছিল। ওই প্রতিনিধি দলের নেতা আব্দুল্লাহ আব্দুল্লাহ বলেন, তারা একটি ন্যায্য ও মর্যাদাপূর্ণ শান্তির সন্ধান করছেন। এর আগে ছয়জন বন্দির মুক্তি লাভের পর বৃহস্পতিবারই তালেবান ওই আলোচনায় যোগ দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে।

তালেবান ও আফগান সরকারের প্রতিনিধিদের মধ্যে এটাই সরাসরি প্রথম কোনো আলোচনা। তালেবানরা সবসময়ই আলোচনার আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান করে আফগান সরকারকে আমেরিকার পুতুল আখ্যা দিয়ে আসছিলো। তবে দু'পক্ষই এখন সহিংসতার অবসান আশা করছে যা ১৯৭৯ সালে শুরু হয়েছিল।

আলাদা করে হলে এ আলোচনার সাথে যোগসূত্র আছে যুক্তরাষ্ট্র-তালেবান চুক্তির যেখানে বিদেশি সৈন্য সরিয়ে নেয়ার বিষয়ে একটি সময়সীমার কথা বলা হয়েছে। ওই সমঝোতায় পৌঁছাতে এক বছরেরও বেশি সময় লেগেছিলো এবং আফগান সরকারের সাথে তালেবানদের আলোচনার বিষয়টি আরও জটিল মনে করা হচ্ছিল।

অনেকে উদ্বেগে ছিলেন যে নারীদের অধিকারের বিষয়টি জলাঞ্জলি দেয়া হতে পারে। তবে এ আলোচনা হয়তো অনেক কিছুর প্রমাণ দেবে। জঙ্গি গোষ্ঠীটি নব্বই সালের পর থেকে পরিবর্তন হতে শুরু করেছে। সরকার ও তালেবান মধ্যস্থতাকারীদের মধ্যে মতবিরোধ হয়েছিল কত বন্দি মুক্তি পাবে তার সংখ্যা ও তারা কারা কারা সেটি নিয়ে।

আবার অব্যাহত সহিংসতাও তাতে ভূমিকা রাখছিল। অন্যদিকে তালেবান যাদের মুক্তি চাইছিল তাদের মধ্যে কয়েকজন বড় কিছু হামলার সাথে সম্পৃক্ত ছিল। সরকারের একজন প্রতিনিধি বলেছেন, ‘আমরা আমাদের জনগণের খুনিদের মুক্তি দিতে পারিনা’।

ওয়াশিংটন পোস্টের এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, সেখানে তিন আফগানও সম্পৃক্ত ছিলেন যারা আমেরিকান সৈন্যদের মৃত্যুর ঘটনার জন্য দায়ী। ফলে প্রক্রিয়াটি ধীর হয়ে পড়েছিল। তবে গত আগস্টে আফগান সরকার শেষ ৪শ তালেবান বন্দিকে মুক্তি দিতে শুরু করে।

তবে সবাইকে সরাসরি মুক্তি দেয়া হয়নি কারণ ফ্রান্স ও অস্ট্রেলিয়া বলছে, এর মধ্যে ছয়জন তাদের নাগরিকদের ওপর হামলার জন্য দায়ী। সব মিলিয়ে বন্দিদের মুক্তি ও দোহায় স্থানান্তরের পর আলোচনার পথ উন্মুক্ত হয়।

বাবু/আমেনা

এ জাতীয় আরো খবর

আর্মেনিয়া-আজারবাইজান সংঘাতে নিহত বেড়ে ৯৫

আর্মেনিয়া-আজারবাইজান সংঘাতে নিহত বেড়ে ৯৫

করোনা পরীক্ষার ফলাফল মিলবে ৩০ মিনিটে

করোনা পরীক্ষার ফলাফল মিলবে ৩০ মিনিটে

জি-২০ সম্মেলন ভার্চুয়ালি আয়োজন করবে সৌদি

জি-২০ সম্মেলন ভার্চুয়ালি আয়োজন করবে সৌদি

নওয়াজ শরিফের ভাই শেহবাজ গ্রেফতার

নওয়াজ শরিফের ভাই শেহবাজ গ্রেফতার

আজারবাইজান-আর্মেনিয়া যুদ্ধ: নিহত ২৩, আহত শতাধিক

আজারবাইজান-আর্মেনিয়া যুদ্ধ: নিহত ২৩, আহত শতাধিক

বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ১০ লাখ ছাড়াল

বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ১০ লাখ ছাড়াল