ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১ ই-পেপার

আত্মরক্ষার তাগিদেই নারীদের ক্যারাটে শেখা উচিত : মৌসুমী মজুমদার

মিজান শাজাহান

২০২১-০৬-০৯ ১৯:২২:৪৪ /

‘আমি আমার আত্মরক্ষার তাগিদে ছোটবেলায় ক্যারাটে ক্লাসে ভর্তি হয়েছিলাম পাড়া প্রতিবেশীর অজান্তেই। কারণ তখন অনেকেই ভাবত ক্যারাটে শেখা মানেই মারপিট শেখা। অবশ্য এখনো এ ধারণা শিক্ষিত-অশিক্ষিত নির্বিশেষে অনেক মানুষের মধ্যেই বিদ্যমান। বর্তমানে নারীদের আত্মরক্ষার কৌশল শেখানোর পাশাপাশি তাদের আত্মনির্ভর করে তুলছি’- এভাবেই নিজের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন পশ্চিমবঙ্গের হাওড়া জেলার বাসিন্দা অধ্যাপিকা মৌসুমী মজুমদার। তিনি উলুবেরিয়া কলেজে দর্শন শাস্ত্রে অধ্যাপনা করার পাশাপাশি ‘আর্ট অফ লাইফ’ নামক মহিলা সংগঠনের সম্পাদিকা এবং “ট্রাডিশনাল শোতো ক্যারাটে অ্যাসোসিয়েশন অফ বেঙ্গল” এর সভাপতি। মৌসুমী দেবী তার কর্মকাণ্ডের জন্য বহু জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। মৌসুমীর জন্ম ১৯৭৪ সালে ভারতবর্ষে। বাবা মনীন্দ্র কুমার মজুমদার বাংলাদেশের নোয়াখালীর বাসিন্দা ছিলেন। আর মা শ্যামলী মজুমদার বরিশালের বানারীপাড়ার বাসিন্দা ছিলেন।  মৌসুমী দেবী স্কুলজীবন থেকেই নানা প্রতিকূলতার মধ্যে বড় হতে থাকেন। রাস্তায় একা বেরোতেই পারতেন না। বিরক্ত হয়ে একসময় পড়াশোনা ছেড়ে দিতে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু শত প্রতিকূলতা মোকাবেলায় ছায়ার মতো পাশে থেকে সাহস যোগাতেন মা ও দাদা সোমনাথ মজুমদার। তিনি অনুভব করলেন এভাবে আর কতদিন মা দাদাকে সঙ্গে নিয়ে পড়াশোনা করতে হবে! তাই বাবার অনুপ্রেরণায় ক্যারাটেতে ভর্তি হলেন। কিছুদিনের মধ্যেই তার আত্মবিশ্বাস বেড়ে ওঠে। কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে একা একাই বাসে ট্রেনে করে পড়াশোনা শেষ করেন। রাস্তাঘাটে প্রতিকূলতা আসতো তবে আত্মরক্ষার কৌশল আত্মস্থ করে আত্মবিশ্বাসী হয়ে প্রতিকূল অবস্থা মোকাবিলা অতি সহজেই করে ফেলতেন এ সাহসী নারী।

মৌসুমী দেবী ২০০১ সালে বিবাহসূত্রে আবদ্ধ হন মোহন পালের সঙ্গে। স্বামী মোহন বাবু হাইস্কুলের শিক্ষক ও মোনো সমাজকর্মী। মৌসুমী দেবী ২০০৭ সালে উলুবেড়িয়া কলেজে দর্শন শাস্ত্রে অধ্যাপনার কাজে যোগদান করেন। তিনি শ্রেণিকক্ষে পড়াতে গিয়ে লক্ষ্য করেন মেয়েদের মানসিক পরিস্থিতির দিকে। তখন থেকেই পড়াশোনার পাশাপাশি তিনি কলেজের মেয়েদের কাউন্সেলিং ও গ্রুমিং করতে থাকেন। তিনি অনুভব করলেন মেয়েদের আত্মরক্ষার কৌশল হিসেবে ক্যারাটে শেখার বিশেষ প্রয়োজন। কারণ ক্যারাটেই একজন মানুষকে করে তুলতে পারে আত্মবিশ্বাসী। আর আত্মবিশ্বাসী হলেই যে কোন সমস্যার সমাধান বের করে নিয়ে আসা যায়। মৌসুমী দেবী বর্তমানে ক্যারাটেতে তৃতীয় ডান ব্ল্যাক বেল্ট। পশ্চিমবঙ্গের প্রায় সমস্ত জেলার প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলের মেয়েদের ক্যারাটে প্রশিক্ষণ দিয়ে চলেছেন। আর্থিকভাবে পিছিয়ে পরা মেয়েদের এবং এন্টি ট্রাফিকিং এলাকাতেও ক্যারাটে প্রশিক্ষণ দিয়ে চলেছেন নিয়মিতভাবে। এ সমস্ত মেয়েদের ব্ল্যাক বেল্ট করে স্পেশাল ট্রেনিং গ্রুমিং করে তাদেরকে যোগ্য প্রশিক্ষক করে আত্মনির্ভরশীল করে তুলেছেন। বিপথগামী অনেক মেয়েদের তিনি সমাজের মূলস্রোতে ফিরিয়ে আত্মনির্ভরশীল করে চলেছেন। সমাজে মেয়েদের আত্মনির্ভরশীল করে তোলার পাশাপাশি নিজের মেয়ে রূপাঞ্জনা পালকে আড়াই বছর বয়স থেকে ক্যারাটে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন। মাত্র ১২ বছর বয়সেই ক্যারাটে ব্ল্যাক বেল্ট হয়ে গেছে রূপাঞ্জনা।

ক্যারাটে বিষয়ে গবেষণা করতে গিয়ে মৌসুমী দেবী অনুভব করেছেন, বর্তমানে সমস্ত মেয়েদের ক্যারাটে প্রশিক্ষণ নেয়া উচিত। ক্যারাটে এমন একটি প্রশিক্ষণ যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজন। যেমন হৃদপিন্ডের রক্ত পরিবাহী ধমনী অতি সক্রিয় হয়ে ওঠে। যার ফলে হার্ট অ্যাটাকের মতো মারাত্মক রোগ বৃদ্ধাবস্থাতেও আসবে না। শারীরিক শক্তি প্রচুর পরিমানে বেড়ে যায় এবং শরীরকে নমনীয় করে তোলে। আর শরীর যদি সুস্থ থাকে তাহলে মনও সুন্দর ছন্দে জীবনের গতিপথকে মসৃণ করে তোলে। আজ বিশ্বব্যাপী স্বাস্থ্য সচেতনতার যুগে চিকিৎসকরা দুটি বিষয়ের প্রতি আলোকপাত করেন- এটেনশান ডেফিসিট ডিজ-অর্ডার এবং এটেনশান ডেফিসিট হাইপার এক্টিভিটি ডিজঅর্ডার। এ দুটি রোগ শিশুদের মধ্যে ভীষণভাবে দেখা যাচ্ছে। এ ধরনের শিশুদের শুধু কাউন্সেলিং করলে চলবে না। মৌসুমী মজুমদার বলেন, এ দুটি রোগ থেকে শিশুদেরকে মুক্ত করতে হলে এক ও একমাত্র প্রয়োজন ক্যারাটে প্রশিক্ষণ। ক্যারাটে আত্মরক্ষা করে, ক্যারাটে স্মৃতিশক্তি বাড়ায়, ক্যারাটে মনসংযোগ বাড়ায়, আত্মবিশ্বাস বাড়ায় ও আত্মনির্ভরশীল করে। এছাড়াও ক্যারাটের অপর একটি নান্দনিক দিকও আছে। যা নৃত্যশৈলীতে প্রতিফলিত হয়। ক্যারাটে নিয়মিত চর্চার মধ্য দিয়ে দৈহিক ভারসাম্য এবং সুষমা নিয়ন্ত্রিত হয়। এ কারণেই নৃত্য ছন্দের সঙ্গে ক্যারাটের নিবিড় নিবন্ধন রয়েছে। এককথায় ক্যারাটে অনুশীলনের বহুমাত্রিক শারীরিক মানসিক ও নান্দনিক উপযোগিতা রয়েছে- এ সত্য আজ সারা বিশ্বে স্বীকৃতি পেয়েছে। এ সমস্ত দিক উপলব্ধি করে তিনি বাংলাদেশের সমস্ত মেয়ের অভিভাবককে অনুরোধ করছেন, তারা যেন তাদের মেয়েকে ছোটবেলা থেকেই পড়াশোনার পাশাপাশি ক্যারাটে প্রশিক্ষণ দেন। মৌসুমী দেবী বলেন, ‘আমরা মহিলারা যদি আত্মসচেতন, আত্মবিশ্বাস ও আত্মনির্ভরশীল হয়ে নিজেদের সম্মান নিজেরা রক্ষা করতে পারি, তাহলে কেউই আমাদের তথা মহিলাদের ছোট করে দেখার আগে দশবার ভাববে।’ 

বাবু/ইমু

 

এ জাতীয় আরো খবর

ঢাকা-কুয়াকাটার দূরত্ব কমাবে লেবুখালী সেতু

ঢাকা-কুয়াকাটার দূরত্ব কমাবে লেবুখালী সেতু

আলো ছড়াচ্ছে মজিবুর রহমান স্মৃতি গ্রন্থাগার

আলো ছড়াচ্ছে মজিবুর রহমান স্মৃতি গ্রন্থাগার

মধুর বাঁশির সুর যেন হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালাকেও হার মানায়

মধুর বাঁশির সুর যেন হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালাকেও হার মানায়

যমুনা চরে বাদামের বাম্পার ফলন

যমুনা চরে বাদামের বাম্পার ফলন

আত্মরক্ষার তাগিদেই নারীদের ক্যারাটে শেখা উচিত : মৌসুমী মজুমদার

আত্মরক্ষার তাগিদেই নারীদের ক্যারাটে শেখা উচিত : মৌসুমী মজুমদার

হারিয়ে যেতে বসেছে রসালো ফল কালো জাম

হারিয়ে যেতে বসেছে রসালো ফল কালো জাম