ঢাকা, রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ ই-পেপার

নগরীতে বেপরোয়া ব্যাটারি চালিত রিকশা; হরহামেশাই ঘটছে দুর্ঘটনা

কামরুজ্জামান রনি, চট্টগ্রাম :

২০২১-০৭-২৯ ১৮:০৯:২৬ /

চট্টগ্রাম নগরীর অলি গলি থেকে প্রধান সড়ক দাপিয়ে চলছে রিকশা৷ সম্প্রতিক সময়ে প্যাডেল চালিত রিকশার চেয়ে নিষিদ্ধ ঘোষিত ব্যাটারি চালিত রিকশার বেপরোয়া চলাচল অনেক গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে৷ ফাঁকা রাস্তায় বেপরোয়া দ্রুতগতির এসব ব্যাটারি চালিত রিকশাগুলো হরহামেশায়ই দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে। এতে ওসব রিকশা আরোহীদের পাশাপাশি আহত হচ্ছে অন্যান্য যানবাহনের আরোহী৷ নিষিদ্ধ ঘোষিত এসব ব্যাটারি চালিত রিকশার বিরুদ্ধে পুলিশের "দেখেও না দেখার" অবস্থা দেখে জনগণের অভিযোগ নির্দিষ্ট অংকের টাকার বিনিময়ে এসব ব্যাটারি চালিত রিকশা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

সম্প্রতি নগরীর চন্দরপুরা এলাকায় বেপরোয়া ব্যাটারি চালিত রিকশার ধাক্কায় গুরুতর আহত হয়েছেন চিত্র সাংবাদিক রাজেশ৷ আহত রাজেশ বলেন, "সেদিন বিকেলে অফিসে আসার পথে চন্দনপুরা এলাকায় পেছন থেকে দ্রুতগতির ব্যাটারি চালিত রিকশার সজোরে ধাক্কায় রাস্তায় ছিটকে পড়লাম মোটরসাইকেল থেকে। করুণ পরিণতি। ডান পায়ের হাঁটু ও হাতের চামড়া ছিঁড়ে গেল বুঝতেই পারলাম না। হেলমেট থাকাতে রক্ষা পেয়েছে মাথা। সবার দোয়া ও আশীর্বাদে এই যাত্রায় বড় বিপদ থেকে বেঁচে গেলাম। খবর পেয়ে সাথে সাথে ছুটে আসলো ফটোসাংবাদিক অনুপম বড়ুয়া ও বাচ্চু বড়ুয়া, নিয়ে গিয়েছিল চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে। এসব ব্যাটারি চালিত রিকশার চলাচলে লাগাম টানা দরকার।"

করোনা সংক্রামণ রোধে দেশে চলমান বিধিনিষেধে সকল যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখা হলেও সড়কে রিকশা চলাচলে তেমন বাঁধা দেয়া হচ্ছেনা৷ ফলে প্যাডেল চালিত রিকশার সাথে বিপুল সংখ্যক ব্যাটারি চালিত রিকশা পুরো নগরীতে চলাচল করছে৷ কাছের ভাড়ার পাশাপাশি দূরের গন্তব্যের ভাড়া মারতে সুবিধা তাই ব্যাটারি চালিত রিকশা নিয়ে সড়কে নেমেছেন বলে জানান কুমিল্লা দাউদকান্দির বাসিন্দা রিকশাচালক হামিদ মিয়া৷

তিনি বলেন, "আমি প্যাডেল চালিত রিক্সাই চালাইতাম৷ লকডাউনে দেখি অনেক যাত্রী দূরে যেতে চায়৷ দূরের গন্তব্যের প্যাডেল রিকশার ভাড়ায় পোষায় না তাই ব্যাটারি চালিত রিকশা নিয়েই নামছি।" একই কথা আরেক ব্যাটারি চালিত রিকশা চালক পটিয়ার আব্দুল হকের৷ তিনি জানান, নগরীর প্রায় সব ওয়ার্ডেই কম বেশি ব্যাটারি রিকশার চার্জের গ্যারেজ আছে৷ তার নিজের চালিত ব্যাটারি রিকশাটি নগরীর কালামিয়া বাজার এলাকার জনৈক শরিফ কোম্পানীর বলে জানান আব্দুল হক৷ আগে পুলিশকে টাকা দিয়ে অলি গলিতে চালানো যেতো এখন পুরো শহরেই চালানো যায় বলে জানান ব্যাটারি রিকশা চালক আসলাম৷ তবে কোথাও পুলিশ ধরলে কয়েকশ’ টাকা দিয়ে সড়ক থেকেই ছাড়িয়ে নিয়ে যেতে হয় বলে জানান আসলাম।

গত ২০ জুন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে সড়ক পরিবহন টাস্কফোর্স এর সভা শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছিলেন, ‘সারাদেশে আমরা লক্ষ্য করেছি রিকশা ও ভ্যানে ব্যাটারি চালিত মটর লাগিয়ে রাস্তায় চালানো হচ্ছে। এগুলোতে ব্রেকের সিস্টেমও দুর্বল ও অপ্রতুল। এগুলো যখন হঠাৎ ব্রেক করে তখন প্যাসেঞ্জারসহ উল্টে যায়। এই দৃশ্য আমরা দেখেছি। হাইওয়েগুলোতেও রিকশা-ভ্যান চলে আসছে। এগুলো বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।'

খোদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের পরেও নগরীতে বন্ধ হয়নি ব্যাটারি চালিত রিকশার চলাচল৷ এই বিধিনিষেধের ফাঁকে বরং ব্যাটারি চালিত রিকশা চলাচল আরো বেড়েছে৷ সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে নগরীর হালিশহর থানা এলাকায় এসব ব্যাটারি চালিত রিকশায় সয়লাব৷

অভিযোগ আছে নির্দিষ্ট অংকের মাসোহারার বিনিময়ে পুরো হালিশহর থানা এলাকায় ব্যাটারি চালিত টমটম ও রিকশা নির্দ্বিধায় চলাচল করছে৷ এই এলাকায় প্যাডেল চালিত রিকশার চেয়ে ব্যাটারি চালিত রিকশা সংখ্যায় বেশী৷

এ বিষয়ে হালিশহর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলামের সাথে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি কল রিসিভ করেননি৷ তাকে এই বিষয়ে এসএমএস পাঠিয়ে জবাব জানতে চাওয়া হলেও তিনি কোন জবাব দেননি। থানার ওসি তদন্ত কল রিসিভ করলেও এই বিষয়ে কোন বক্তব্য দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন৷ তিনি অফিসার ইনচার্জের সাথে এই বিষয়ে কথা বলার জন্য বলেন।

তবে হালিশহরের বাসিন্দাদের মতে পুলিশের টোকেনেই এখানে ব্যাটারি চালিত টমটম আর রিক্সা চলাচল করে এটা এখন ওপেন সিক্রেট৷ একাধিক ব্যাটারি চালিত রিকশা চালকরাও এই টোকেনের বিনিময়ে রিকশা চালানোর কথা স্বীকার করেছেন৷ থানার সোর্স আর লাইনম্যানের মাধ্যমে এসব রিকশা চলাচল করে বলে জানান তারা।

এছাড়া নগরীর প্রায় সব থানা এলাকাতেই কম বেশি এসব ব্যাটারি চালিত রিকশা সড়ক দাপিয়ে চলাচল করতে দেখা যাচ্ছে৷ এখন পর্যন্ত চলমান বিধিনিষেধের সময়ে কোন ব্যাটারি চালিত রিকশার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে দেখা যাচ্ছেনা৷

সিএমপি'র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) শ্যামল কুমার নাথ বাংলাদেশ বুলেটিনকে বলেন, আমরা প্রতিদিনই বিধিনিষেধ অমান্য করা চলাচল করা যানবাহনের বিরুদ্ধে মামলা দিচ্ছি, অনেক যানবাহন আটকও করছি৷ প্রায় প্রতিটি প্রধান সড়কের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট গুলোতে আমাদের ট্রাফিক ফোর্স মোতায়েন করা আছে। তবে নগরীর অলি গলিতে ট্রাফিক বিভাগের কার্যক্রম না থাকার সুযোগে হয়তো ব্যাটারি চালিত রিকশা চলাচল করছে৷ বিভিন্ন থানা এলাকায় ব্যাপক ব্যাটারি চালিত রিকশা চলাচলের বিষয়ে তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমি ক্রাইম বিভাগকে জানাবো। আশাকরি তারা এই বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেবে।

বাবু/প্রিন্স

এ জাতীয় আরো খবর

পরী-সাকলায়েনের ভিডিও ভাইরাল (ভিডিও)

পরী-সাকলায়েনের ভিডিও ভাইরাল (ভিডিও)

নগরীতে বেপরোয়া ব্যাটারি চালিত রিকশা; হরহামেশাই ঘটছে দুর্ঘটনা

নগরীতে বেপরোয়া ব্যাটারি চালিত রিকশা; হরহামেশাই ঘটছে দুর্ঘটনা

মুনিয়া হত্যায় নতুন মোড়; অভিযোগকারীই এখন অভিযুক্ত

মুনিয়া হত্যায় নতুন মোড়; অভিযোগকারীই এখন অভিযুক্ত

সিআরবি এলাকায় হাসপাতাল : দুই দিনে দুই সাধারণ সম্পাদকের দুই রকম কথা

সিআরবি এলাকায় হাসপাতাল : দুই দিনে দুই সাধারণ সম্পাদকের দুই রকম কথা

সাবেক ২য় স্ত্রীর বর্তমান স্বামীকে প্রাণনাশের হুমকি দিলেন ডাঃ ফয়সাল

সাবেক ২য় স্ত্রীর বর্তমান স্বামীকে প্রাণনাশের হুমকি দিলেন ডাঃ ফয়সাল

চট্টগ্রামে পুলিশ সদস্যের ইয়াবা সেবনের ভিডিও ভাইরাল (ভিডিও সহ)

চট্টগ্রামে পুলিশ সদস্যের ইয়াবা সেবনের ভিডিও ভাইরাল (ভিডিও সহ)