ঢাকা, সোমবার, ৬ ডিসেম্বর ২০২১ ই-পেপার

শিরোনাম : বক্তব্য প্রত্যাহারের প্রশ্নই ওঠে না : প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান বৃষ্টির মধ্যে মুখে কালো কাপড় বেঁধে নেমেছেন শিক্ষার্থীরা টানা বৃষ্টিতে ঢাকার অলি-গলিতে জলাবদ্ধতা, ভোগান্তি সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত ‘জাওয়াদ’, বৃষ্টি থাকতে পারে সারাদিন ড্রেসিংরুমের ক্রিকেট -‘ইতিহাস’ গড়লেন বাবর আজম! ক্ষোভের আগুনে জ্বলছে ভারতের উত্তরপূর্বাঞ্চল, ফের সংঘাতে প্রাণহানি চীনের দৌড়ে লাগাম টেনেছে করোনা, বাড়ছে যুদ্ধের ঝুঁকি প্রতিমন্ত্রী মুরাদকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা, কুশপুত্তলিকা দাহ অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে সাম্প্রতিক সময়ে সাফল্য দেখিয়েছে বাংলাদেশ বৈদেশিক কর্মসংস্থানের রেকর্ড: নভেম্বরে বি‌দেশে ১ লা‌খের বে‌শি কর্মী

ডোমারে কলা চাষের উজ্জ্বল সম্ভাবনা

রতন কুমার রায়, ডোমার (নীলফামারী):

২০২১-০৮-০৯ ১৯:৪৩:৫৭ /

কলা বাংলাদেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ ফল। কলাগাছ, কলাপাতা, কলাগাছের শেকড় ও কলা সবই উপকারী। প্রচুর পুষ্টিগুণ থাকে কলায়।

নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলায় বাণিজ্যিকভাবে কলা চাষে উজ্জ্বল সম্ভাবনা দেখছেন উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। 
 

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, বাণিজ্যিক ভিত্তিতে যেসব জাতের কলা আবাদের সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে তন্মধ্যে উল্লেখযোগ্য জাতগুলো হচ্ছে হিম সাগর, সবরী ও চম্পা অন্যতম। পর্যাপ্ত রোদযুক্ত ও পানি নিষ্কাশনের সুবিধাযুক্ত উচু জমি কলা চাষের জন্য উপযুক্ত। উর্বব দো-আঁশ মাটি কলা চাষের জন্য উত্তম। 

উপজেলার বেশিরভাগ জমি দো-আঁশ মাটি হওয়ায়, কলা ভালো ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। কলার চারা বছরে তিন সময়ে রোপন করা যায়। প্রথম রোপণকাল বাংলা সনের আশ্বিন ও কার্তিক সবচেয়ে ভালো সময়। দ্বিতীয় কাল, মাঘ-ফাল্গুন ও চৈত্র- বৈশাখ মাস চারা রোপণের ভালো সময়।

চারা রোপণের জন্য সারিবদ্ধ ভাবে গড় ২ মিটার দূরত্বে রোপণ করতে হবে। কলাগাছের প্রধানতম রোগগুলো হচ্ছে পানামা, বানচিটপ ভাইরাস, সিগাটোকা ও কলার দাগ রোগ। 

কলার চারা রোপণের ১১-১৫ মাসের মধ্যেই সাধারণত সব জাতের কলাগাছ থেকে কলা সংগ্রহ করা যায়।

উপজেলার বোড়াগাড়ী ইউনিয়নের পশ্চিম বোড়াগাড়ী এলাকার কৃষক ইব্রাহীম আলী জানান, দীর্ঘদিন ধরে কলার ব্যবসা করছি। বগুড়া, সিরাজগঞ্জ জেলা থেকে কলা ক্রয় করে নিজ এলাকায় বিক্রি করি। সেখানে কলার চাষ দেখে নিজেও কলা চাষে আগ্রহী হই। নিজের চাষাবাদের জমি না থাকায়, তিন বছরের জন্য এক একর জমি বন্ধক নিয়েছি। সেখানে কলার চারা রোপণ করেছি। গাছগুলো সুস্থ সবল হয়ে বেড়ে উঠছে। প্রাকৃতিক কোনো দুর্যোগে ক্ষতি না হলে ভালো ফলনের আশা করছি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবীদ আনিছুজ্জামান জানান, বাণিজ্যিকভাবে উপজেলায় ২৫ হেক্টর জমিতে কলা চাষ করা হচ্ছে। বোড়াগাড়ী, ভোগডাবুড়ি ও সোনারায় ইউনিয়ন কৃষকরা বাণিজ্যিকভাবে বিক্রয়ের জন্য কলা চাষ করেছে। প্রতি একরে ১২ শত হতে ১৪ শত চারা রোপণ করা যায়। ভালো ফলনে একরে ৩ লক্ষ হতে ৪ লক্ষ টাকার কলা উৎপাদন করা সম্ভব। 

তাছাড়াও কলা বাগান হতে চারা উৎপাদন করে ভালো টাকা উপার্জন করা যায়। চাষিদের সরকারিভাবে কোনো প্রণোদনা দেওয়া না হলেও কলা চাষে ও রোগ বালাই দূরীকরণে পরামর্শ দেওয়া হয়। আগামীতে বেশি কলা চাষে কৃষকদের উৎসাহ দেওয়া হচ্ছে। 

বাবু/ রনি

 

এ জাতীয় আরো খবর

বিজয়ের প্রথমদিনে সেন্টমার্টিন যাত্রা করল বিশেষ প্যাকেজ গ্রীন লাইন

বিজয়ের প্রথমদিনে সেন্টমার্টিন যাত্রা করল বিশেষ প্যাকেজ গ্রীন লাইন

বুবু তুমি কেঁদো না

বুবু তুমি কেঁদো না

গাছের ফেরিওয়ালা প্রভাতের দল

গাছের ফেরিওয়ালা প্রভাতের দল

আশ্রয়হীন শিশুদের নিরাপদ আশ্রয় ‘ডিআইএসএস’

আশ্রয়হীন শিশুদের নিরাপদ আশ্রয় ‘ডিআইএসএস’

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু আমার নানা ভাই...

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু আমার নানা ভাই...

ত্রিশ বছরেও সংস্কার হয়নি সেতু বন্ধনের ব্রীজ

ত্রিশ বছরেও সংস্কার হয়নি সেতু বন্ধনের ব্রীজ