ঢাকা, রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ ই-পেপার

মেয়ে পেটে ধরা অপরাধ!

হোসনেয়ারা বিথী

২০২১-০৯-১১ ১৮:১৪:৫৯ /

দু’দিন আগে গণমাধ্যমে দেখলাম-আফগানিস্তানে তালেবানের মুখপাত্র বলেছেন, নারীদের কাজ সন্তান জন্ম দেওয়া। তাদের সরকারে মন্ত্রিসভায় কোন নারীকে রাখা হয়নি কেন- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তালেবান মুখপাত্র ওই মন্তব্য করেন। আমরা তালেবানের সমালোচনায় মুখর। আমরাও কি নারীকে মানুষ হিসেবে মন থেকে মেনে নিতে পারছি। ১১ সেপ্টেম্বর আমার দ্বিতীয় কন্যার জন্মদিন ছিল।

তাকে নিয়ে আমি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে লিখেছি--
‘প্রিয় নুওয়াইরাহ’,
‘তোমার অস্তিত্ব যেদিন টের পেয়েছিলাম, আমি স্বাভাবিকভাবেই অপ্রস্তুত ছিলাম, আল্লাহ আমাকে অপ্রত্যাশিতভাবে জগতের সেরা জিনিসটা দিয়েছেন তোমাকে, আলহামদুলিল্লাহ। প্রেগন্যান্সির ৫ মাসের সময় বুঝতে পারি, আমার ঘরে আবারো মেয়ে আসছে, আমি প্রচন্ডভাবে এবানডনড হই মেয়ে পেটে ধরার ‘অপরাধে’। বারবার মরে গিয়ে “বেঁচে” যেতে চেয়েছিলাম! আসলে মরে গেলেই বেঁচে যাওয়া নয়- এটা এখন আমি খুব বুঝতে পারি! তোমার সঙ্গে কাটানো প্রতিটি মুহুর্ত মহামূল্যবান!  ২০১৫ এর এই দিনে তুমি এসেছিলে দুনিয়াতে, ছয়বছরের লক্ষ্মী বাচ্চা তুমি। 
আড়াই বছরেও তুমি যখন কথা বলোনি, আবদুল্লাহ (আমার স্বামী) চিন্তিত হয়ে একদিন তোমাকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়ে যায়! আমি বারবার না করা সত্ত্বেও!  আমিতো জানি আমার বাবা কতটা বুদ্ধিমান, স্মার্ট!  কথা বলতে দেরি হচ্ছে এই যা! অবশ্য ডাক্তার দেখেই বলেছে মেয়ে পারফেক্ট আছে! নিচের কথাগুলো তোমার বড়বোনের জন্মদিনে লিখেছিলাম, তোমাকেও আমি একি বন্দনা দেই, একি দোয়া করি, একি উপদেশ দেই, একি ভালবাসা দেই। তুমি, আমি, নেহলাহ, আমরা- একদিন অনেক দূরে এগিয়ে যাবো দেখে নিও!

তুমিতো মানুষ, আপাদমস্তক একজন মানুষ। শুধুই মেয়েমানুষ না! মা, কাউকে কোনো সুযোগ দিবে না যে তোমাকে মেয়ে মানুষ বলে মানুষ থেকে আলাদা করতে চায়! বি রিবেলিয়াস! পৃথিবীতে কাউকে বিশ্বাস করবে না, কাউকে না। আমাকেও না! শুধুই নিজের সাথে কথা বলবে, নিজের সঙ্গে শলা-পরামর্শ করবে, নিজেকে ভালোবাসায় একবিন্দু ছাড় দিবে না। যখন মনে করো আর পারছো না,  সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছো, বিশ্বাস করো আমাকে পাবে, আমি তোমার পাশেই থাকবো। তোমার জীবন কে বিচার না করে তোমাকে এগিয়ে যেতে সবরকম চেষ্টা করে যাবো আমি, আই প্রোমিজ।

ফ্যামিনিস্ট হবে কি হবে না এটা তোমার সিদ্ধান্ত। তবে নারীদের সম্মান করবে, নারীদের কে শুধুই রূপের কারণে বিচার করবে না, নারীকে আলাদা সত্তা ভাববে, আলাদা রক্ত মাংসের মানুষ ভাববে, সম্মান করবে প্রতিনিয়ত!
প্রতি প্রোসেসে আপ-ডাউন থাকে, তোমার প্রতিটি জীবনের প্রোসেসে আমাকে পাশে পাবে বাবা আমার। বড়দের সম্মান করবে, কখনো বড়দের কে বুঝতে দিবে না যে তুমি তাদের চেয়েও স্মার্ট।  যদি তারা ডাম্ব হয়েও থাকে তবু তাদের সম্মান দিয়ে কথা বলবে, কারণ বড়রা সমাজের বৃক্ষের মতো, এরা সমাজকে কোনো না কোনো ভাবে দিয়েই যায়। সবসময় নিজের প্লান সম্পর্কে নিজেই সচেতন থাকবে, কাউকে প্লান জানাবে না। সফলতায় কেউ খুশি হয় না, হিংসে করে, এটাই সমাজের ঘৃণ্য চিত্র! কী করবে মা! তবে জেনে রেখো, আমাকে পাশে পাবে সবসময়!  
সুখী হওয়ার দৌড়ে তুমি নাম লেখাবে না, বরং সুখী করবার দৌড়ে নিজেকে নিবেদিত করবে। দেখবে তাহলেই শান্তি পাবে। সুখ ক্ষণস্থায়ী, শান্তি চিরন্তন! শান্তির জন্য পরোপকারী হবে, মানুষকে ভালবাসবে, মানুষের সেবা করবে, মনে রাখবে নিজেকে ভাল না বাসলে তুমি মানুষকে ভালবাসতে পারবে না, তাই নিজেকে ভালবাসার মাধ্যমে অন্যের ভালবাসাকে নিশ্চিত করবে, মা আমার!

সমাজের সকল স্টেরিওটাইপ চিন্তাভাবনাগুলো না ভাঙতে পারো, নিজেকে শুধরাবে, নিজেকে বদলাবে। প্রকৃত মানুষ হবে প্রতিনিয়ত।  মা আমার, দেশ মা এর মতো, দেশ ঘর তোমার। যাদের দেশ নেই, যেমন রোহিঙ্গা, যেমন সিরিয়া, ইরাক, আফগানিস্তানের শিশুরা, ওরা জানে দেশ কি! তাকিয়ে নীচে তাকাবা, দেখবে কত ভালো আছো! ধনী-গরীব দিয়ে মানুষ কে বিচার করবে না। মানুষের কর্ম মানুষকে মহিমান্বিত করে, আর তাই ভাল মানুষকে সবসময় সম্মান ও শ্রদ্ধা করবে। অনেক ভালবাসি আমি তোমাকে, আমার থেকেও বেশি। তুমি জানো, তুমি/তোমরা আমার সবকিছু। এই ভালোবাসা আমৃত্য থাকবে, আই প্রোমিজ! ভাল থেকো, শক্তিশালী হও, সুন্দর থেকো, মানুষ হও, অনেক সুন্দর ও সুস্থ জীবন হোক তোমার।’

লেখক : দুই কন্যাসন্তানের জননী

 

এ জাতীয় আরো খবর

মেয়ে পেটে ধরা অপরাধ!

মেয়ে পেটে ধরা অপরাধ!

সাক্ষরতার আলো জ্বলে উঠুক ঘরে ঘরে

সাক্ষরতার আলো জ্বলে উঠুক ঘরে ঘরে

দক্ষিণ ঢাকায় মেডিকেল বর্জ্য অব্যবস্থাপনার দায় কার

দক্ষিণ ঢাকায় মেডিকেল বর্জ্য অব্যবস্থাপনার দায় কার

উন্নয়নে এনজিও কর্মীদের অবদান এবং করোনাকালে তাদের জীবন-জীবিকা

উন্নয়নে এনজিও কর্মীদের অবদান এবং করোনাকালে তাদের জীবন-জীবিকা

আফগানিস্তানে তালেবানি শাসন এবং ভূরাজনৈতিক সমীকরণ

আফগানিস্তানে তালেবানি শাসন এবং ভূরাজনৈতিক সমীকরণ

করোনায় বাড়ছে শিক্ষিত বেকার

করোনায় বাড়ছে শিক্ষিত বেকার