ঢাকা, রবিবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২১ ই-পেপার

বাঙালি সত্তাই বাঙালি জাতির মূলমন্ত্র

এম.এম.কামাল উদ্দিন

২০২০-১২-১০ ১৬:৩৬:৩৭ /

পবিত্র ধর্ম ‘ইসলামের’ পবিত্রতা রক্ষা করা প্রতিটি মুসলমানের অবশ্য করণীয়। তদ্রুপ ‘ইসলামের’ অপব্যবহার কারীদের রুখে দেওয়ায় একজন মুসলমান হিসেবে আমাদের অবশ্য পালনীয়।   

ক্ষমতার লোলুপতায় পবিত্র ধর্ম ‘ইসলামের’ অপব্যবহারকারী পাকিস্তানি বর্বর বাহিনী এবং তাদের দোসর রাজাকার আল বদর-আল শামস বাহিনীর বর্বরতা ইতিহাসের নিকৃষ্টতম অংশ, নারকীয়তার ঊর্ধ্বগামিতায় তারা নিক্ষিপ্ত হয়েছে ইতিহাসের আস্তাকুঁড়ে। 

বাংলাদেশ জন্মলাভ করেছে একটি অসাম্প্রদায়িক চেতনার উপর ভিত্তি করে। অসাম্প্রদায়িক বাঙালি চেতনার ঐক্যবদ্ধ পরিণত রূপই আমাদের প্রাণের বাংলাদেশ। মুসলমান, হিন্দু, খ্রিস্টান, বৌদ্ধ, সকল ধর্ম, বর্ণের মৌলিকতা বাঙালি সত্তায়। এ বাঙালি চেতনাই প্রাণের ভূখ- বাংলার অমিয় শক্তি। বাঙালি জাতি সত্তাই এই ভূখণ্ডের প্রাণ- এই ভূখণ্ডের ইতিহাস রচয়িতা ।

ইতিহাসের যে মহানায়ক বাংলা ভূখণ্ডের ক্রান্তিলগ্নে চিরন্তন বাঙালি সত্তাকে জাগিয়ে তুলেছিলেন, পুরো জাতিকে বাঙালি চেতনায় ঐক্যবদ্ধ করেছিলেন, তিনি বাঙ্গালি জাতির জনক ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। 

ইতিহাসের এই মহানায়কের জীবনকাল মাত্র ৫৫ বছর ৪ মাস ২৯ দিন। এই স্বল্প সময়ের পুরোটাই- নির্যাতিত বাঙালি জাতির মুক্তির জন্য তিনি লড়াই, সংগ্রাম চালিয়েছেন; পুরো জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করেছেন চিরন্তন বাঙালি চেতনায়। বাঙ্গালি জাতির মুক্তির প্রশ্নে আপোষহীন এই মহানায়ক তাঁর লড়াই সংগ্রামের এই জীবনে ৪ হাজার ৬৮২ দিন কারাভোগ করেছেন। 

এরমধ্যে স্কুলের ছাত্র থাকা অবস্থায় ব্রিটিশ আমলে ৭ দিন কারা ভোগ করেন। বাকি ৪ হাজার ৬৭৫ দিন তিনি কারাভোগ করেন পাকিস্তান সরকারের আমলে। সূত্র : বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর, আওয়ামী লীগের বর্ষীয়ান নেতা, কয়েক বারের মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের সংসদে দেওয়া বক্তব্য।

কিউবার সাবেক প্রেসিডেন্ট এবং কিংবদন্তি বিপ্লবী ফিদেল কাস্ত্রো এই মহানায়ককে হিমালয় পর্বতের সাথে তুলনা করেছিলেন, এই মহানায়ককে হারানোর পর তিনি বলেছিলেন, ‘শেখ মুজিবের মৃত্যুতে বিশ্বের শোষিত মানুষ হারাল তাদের একজন মহান নেতাকে। আমি হারালাম একজন অকৃত্রিম বিশাল হৃদয়ের বন্ধুকে।’ 

ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী বলেন, ‘শেখ মুজিব নিহত হওয়ার খবরে আমি মর্মাহত। তিনি একজন মহান নেতা ছিলেন। তাঁর অনন্য সাধারণ সাহসিকতা এশিয়া ও আফ্রিকার জনগণের জন্য প্রেরণাদায়ক ছিল।’

বাঙালি কবি এবং প্রাবন্ধিক অন্নদাশঙ্কর রায় বলেন, ‘যতকাল রবে পদ্মা যমুনা গৌরি মেঘনা বহমান, ততকাল রবে কীর্তি তোমার শেখ মুজিবুর রহমান।’ প্রখ্যাত মিশরীয় সাংবাদিক মোহাম্মাদ হাসনাইন হাইকল বলেছেন, ‘শেখ মুজিবুর রহমান শুধু বাংলাদেশের সম্পত্তি নন। তিনি সমগ্র বাঙালির মুক্তির অগ্রদূত।’

যুক্তরাষ্ট্রর সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি বলেন, ‘সহিংস ও কাপুরুষোচিতভাবে বাংলাদেশের জনগণের মধ্য থেকে এমন প্রতিভাবান ও সাহসী নেতৃত্বেকে সরিয়ে দেওয়া কী যে মর্মান্তিক ঘটনা! তারপরেও বাংলাদেশ এখন বঙ্গরন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে এগিয়ে যাচ্ছে, তাঁরই কন্যার নেতৃত্বে। যুক্তরাষ্ট্র তাঁর সেই স্বপ্নপূরণে বন্ধু ও সমর্থক হতে পেরে গর্ববোধ করে।’ 

ফিলিস্তিনি মুক্তি আন্দোলনের সাবেক নেতা নোবেল বিজয়ী ইয়াসির আরাফাত বলেছেন, ‘আপোষহীন সংগ্রামী নেতৃত্ব ও কুসুমকোমল হৃদয় ছিল মুজিবের চরিত্রের বিশেষত্ব।’ 

প্রভাবশালী ব্রিটিশ দৈনিক দ্য গার্ডিয়ানের মতে, ‘শেখ মুজিব ছিলেন এক বিস্ময়কর ব্যক্তিত্ব।’ 

ফিনান্সিয়াল টাইমসের ভাষায়, ‘মুজিব না থাকলে বাংলাদেশ কখনই জন্ম নিতনা।’ 

নিউজ উইকে বঙ্গবন্ধুকে আখ্যা দেওয়া হয়, ‘পয়েন্ট অব পলিটিক্স বলে।’ বৃটিশ লর্ড ফেন্যার ব্রোককওয়ে বলেছিলেন, ‘শেখ মুজিব জর্জ ওয়াশিংটন, গান্ধী ও দ্যা ভ্যালেরার থেকেও মহান নেতা’। 

জাপানী মুক্তি ফুকিউরা আজও বাঙালি দেখলে বলে বেড়ান, ‘তুমি বাংলার লোক? আমি কিন্তু তোমাদের জয় বাংলা দেখেছি। শেখ মুজিব দেখেছি। জানো এশিয়ায় তোমাদের শেখ মুজিবের মতো সিংহ-হৃদয়ের নেতার জন্ম হবে না বহুকাল।’

বাংলা, বাঙালি, জয় বাংলা, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশ ও একই সুতোয় রচিত  একটি গর্বিত ইতিহাস। এই গর্বিত ইতিহাসের যারা বিরোধিতা করেছিল আল বদর, আল শামস বাহিনী- নিকৃষ্টতার ঊর্ধ্বগামিতায় তারা পতিত হয়েছে ইতিহাসের আস্তাকুঁড়ে। 

তাদের কাছে বাঙালি সত্ত্বা কখনো গৃহীত হয়নি, তারা পবিত্র ধর্ম ইসলামের অপব্যবহার করে নিজ  স্বদেশের বিরোধিতায় লিপ্ত হয়েছিল- শুধুমাত্র ক্ষমতার উল্লাসের প্রত্যাশায়। ইসলামের অপব্যাখ্যার মাধ্যমে তারা শুধুমাত্র ক্ষমতার লোভে পাকিস্তানি জানোয়ারদের পক্ষপাতিত্ব করেছিল। এমনকি  তারাও লিপ্ত হয়েছিল নিকৃষ্টতার চরমতায়।

‘পবিত্র ধর্ম ইসলাম’ একটি শান্তির ধর্ম। ইসলাম কখনোই নিজ স্বদেশের বিরোধিতা এবং মজলুমকে অত্যাচার সমর্থন করে না। একজন মুসলমান হিসেবে আমি এই শিক্ষাই পেয়েছি। 

ইতিহাসের আস্তাকুঁড়ে নিক্ষিপ্ত সেই আল বদর, আল শামস বাহিনী এখনো জীবিত, তাদের উত্তরসূরীরা আজও মাথা চারা দেওয়ার অপেক্ষায় সুযোগের সন্ধানে বসে রয়েছে। যারা পূণরায় এই ভূখ-কে পাকিস্তানে রূপ দিতে চায়। 

১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের এক ইশারায় বাংলার ৭ কোটি নিরস্ত্র বাঙালি- মুসলমান, হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান সকলেই আধুনিক অস্ত্রে সজ্জিত পাকিস্তান নরপিশাচ এবং তাদের দোসরদের বর্বরতা, নারকীয়তাকে রুখে দিয়েছিল শুধুমাত্র বাঙ্গালি চেতনায় ঐক্যবদ্ধ হয়ে। 

এই ‘বাঙ্গালি চেতনাই’ আমাদের  ঐক্যের শক্তি। বাংলা ভূখণ্ডের মুসলমান, হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, সকল ধর্ম ও বর্ণের একটিই পরিচয়- আমরা বাঙালি, বাংলা মোদের ভাষা,  বাঙালিত্ব মোদের প্রাণ এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এই গর্বিত বাঙালি জাতির জনক।

লেখক : সাবেক ভি.পি, সলিমুল্লাহ মুসলিম হল ছাত্র সংসদ

সহ-সভাপতি, সলিমুল্লাহ মুসলিম হল ছাত্রলীগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

বাবু/জেআর

এ জাতীয় আরো খবর

আকস্মিক রাজনীতিবিদ সৈয়দ আশরাফ

আকস্মিক রাজনীতিবিদ সৈয়দ আশরাফ

ঘুষ অসাধ্য সাধনের একটি মুখপাত্র

ঘুষ অসাধ্য সাধনের একটি মুখপাত্র

বাঙালি সত্তাই বাঙালি জাতির মূলমন্ত্র

বাঙালি সত্তাই বাঙালি জাতির মূলমন্ত্র

উন্নয়নের স্রোতধারায় বদলে যাওয়া এক নগরী

উন্নয়নের স্রোতধারায় বদলে যাওয়া এক নগরী

দূরবীনে দূরের জানালা

দূরবীনে দূরের জানালা

করোনারোধে ঢাকার ৪৯ এলাকা লকডাউন হচ্ছে

করোনারোধে ঢাকার ৪৯ এলাকা লকডাউন হচ্ছে