ঢাকা, মঙ্গলবার, ২ মার্চ ২০২১ ই-পেপার

কালীগঞ্জে একুশে ফেব্রুয়ারি হবে নতুন শহীদ মিনারে

কালীগঞ্জ (গাজীপুর) প্রতিনিধি

২০২১-০২-১৯ ১২:৫১:৩৬ /

গাজীপুরের কালীগঞ্জে এবারের আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও মহান একুশে ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবস উদযাপিত হবে নতুন শহীদ মিনারে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শিবলী সাদিকের পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নে নির্মিত দেশের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের আদলে তৈরি এ শহীদ মিনারটি হবে স্থানীয়দের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার।

জানা গেছে, কালীগঞ্জ রাজা রাজেন্দ্র নারায়ণ (আরআরএন) পাইলট সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠের পূর্ব কোনে ছিল একটি শহীদ মিনার। যেটি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার হিসেবে ব্যবহৃত হতো। কিন্তু স্থানীয় বাজার ও হোটেল ব্যবসায়ীরা সেই শহীদ মিনারের পাদদেশে ময়লার বাগারে পরিনত করে রাখতো। 

ইউএনও’র নেতৃত্বে সেই শহীদ মিনারটি ময়লার বাগার থেকে মুক্ত করেন এবং সেটি আরআরএন পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের জন্য উন্মুক্ত করেন। 

এদিকে, ইউএনও মো. শিবলী সাদিকের ব্যক্তিগত আগ্রহে ও স্থানীয়দের সহযোগীতায় এ উপজেলায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার তৈরির উদ্যোগ নেন। তারই ধারাবাহিকতায় ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসে উপজেলা ভূমি অফিসের সামনে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি, ওই মন্ত্রণালয়ের সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মেহের আফরোজ চুমকি এমপি। 

জানা গেছে, ইউএনও শিবলী সাদিকের পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নে নির্মিত কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের আর্থিক ব্যয় হয় প্রায় ৪৫ লক্ষ টাকা। আর নির্মিত এ শহীদ মিনারটির আর্থিক যোগান আসে স্থানীয়দের সহযোগীতা থেকে।  

গত বুধবার কেন্দ্রীয় এ শহীদ মিনারটি উদ্বোধন করেন স্থানীয় সাংসদ মেহের আফরোজ চুমকি এমপি। 

এ সময় গাজীপুর জেলা প্রশাসক এসএম তরিকুল ইসলাম, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মোয়াজ্জেম হোসেন পলাশ, ইউএনও মো. শিবলী সাদিক, থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম মিজানুল হকসহ উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের প্রধান, স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

শুক্রবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) সকালে সরেজমিনে দেখা গেছে, কয়েকটি গ্রুপ কয়েকটি ভাগে বিভক্ত হয়ে চালিয়ে যাচ্ছে শহীদ মিনার পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ। শহীদ মিনারের পাশে দিয়ে হেঁটে যাওয়া পথচারিরা ঘুরে ঘুরে কাজ দেখছেন আর সুন্দর এবং স্থায়ী এই কাজের জন্য ইউএনও শিবলী সাদিককে সাধুবাদ জানাচ্ছেন।

এ ব্যাপারে কথা হয় স্থানীয় কয়েকজন শিক্ষক ও গণমাধ্যম কর্মীর সাথে। তারা এ প্রতিবেদককে জানান, আসলে শহীদ মিনারটি তৈরির আগে আমরা স্থানীয় মানুষজন চিন্তাও করতে পারিনি কালীগঞ্জে এমন একটা শহীদ মিনার হবে। ইউএনও সাহেব তাঁর চিন্তা চেতনার সেরাটাই দিয়েছেন স্থানীয় মানুষদের জন্য। 

ইউএনও মো. শিবলী সাদিক বলেন, আমি যোগদানের পর দেখি স্থানীয়ভাবে ভাল কোন শহীদ মিনার নেই। যেটি কেন্দ্রীয়ভাবে ব্যবহার করা হতো সেটিরও ছিল খারাপ অবস্থা। অনেক ইতিহাসের কালীগঞ্জে ভাল কোন শহীদ মিনার থাকবেনা বিষয়টি আমাকে কষ্ট দেয়। পরিকল্পনা করি এবং অবশেষে স্থানীয়দের সহযোগীতায় শহীদ মিনারের কাজ সমাপ্ত হয়। আমি হয়তো থাকবো না। কিন্তু বাস্তবায়িত এই শহীদ মিনার দেখলেই আমার কথা মনে পড়বে স্থানীয়দের।      

বাবু/জেআর

এ জাতীয় আরো খবর

চাঁপাইনবাবগঞ্জের মৃৎশিল্প হারিয়ে যাওয়ার পথে

চাঁপাইনবাবগঞ্জের মৃৎশিল্প হারিয়ে যাওয়ার পথে

প্রধানমন্ত্রীর ঘরের আশায় ভিক্ষুক আনেচ ও তার স্ত্রী

প্রধানমন্ত্রীর ঘরের আশায় ভিক্ষুক আনেচ ও তার স্ত্রী

কালীগঞ্জে একুশে ফেব্রুয়ারি হবে নতুন শহীদ মিনারে

কালীগঞ্জে একুশে ফেব্রুয়ারি হবে নতুন শহীদ মিনারে

কালকিনিতে ব্রিজ এখন মরণ ফাঁদ!

কালকিনিতে ব্রিজ এখন মরণ ফাঁদ!

হারিয়ে যাচ্ছে বরিশালের ঐতিহ্যবাহী বাঁশ-বেত শিল্প

হারিয়ে যাচ্ছে বরিশালের ঐতিহ্যবাহী বাঁশ-বেত শিল্প

গলাচিপায় ঐতিহ্যবাহী দয়াময়ী মেলা

গলাচিপায় ঐতিহ্যবাহী দয়াময়ী মেলা